facebooktwitterpinteresttumblr
নাস্তিকতায় কোন ইলাহে বিশ্বাস করা হয়না, আর ধার্মিকতায় বিশ্বাস করা হয় যে, আল্লাহ তায়া’লা সব কিছু সৃষ্টি করেছেন। ধার্মিকতা মানুষকে আত্মিক সৌভাগ্য ও মানসিক প্রফুল্লতা দান করে, পক্ষান্তরে  নাস্তিকতা একটি ভ্রান্ত চিন্তাভাবনা যা মানুষকে আত্মিক সৌভাগ্য ও মানসিক প্রফুল্লতা থেকে বঞ্চিত করে।

নাস্তিকতায় কোন ইলাহে বিশ্বাস করা হয়না, আর ধার্মিকতায় বিশ্বাস করা হয় যে, আল্লাহ তায়া’লা সব কিছু সৃষ্টি করেছেন। ধার্মিকতা মানুষকে আত্মিক সৌভাগ্য ও মানসিক প্রফুল্লতা দান করে, পক্ষান্তরে নাস্তিকতা একটি ভ্রান্ত চিন্তাভাবনা যা মানুষকে আত্মিক সৌভাগ্য ও মানসিক প্রফুল্লতা থেকে বঞ্চিত করে।

ইসলাম ধর্মের ন্যায় অন্য কোন ধর্ম বা মতবাদ নেই যা জ্ঞানীদের মর্যাদা সু-উঁচু করেছে,  জ্ঞানের প্রতি উৎসাহিত করেছে। আল কোরআন ও হাদিসে জ্ঞান-বিজ্ঞানের উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

ইসলাম ধর্মের ন্যায় অন্য কোন ধর্ম বা মতবাদ নেই যা জ্ঞানীদের মর্যাদা সু-উঁচু করেছে, জ্ঞানের প্রতি উৎসাহিত করেছে। আল কোরআন ও হাদিসে জ্ঞান-বিজ্ঞানের উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

খুতবায় যা থাকছে : (ক)মাহে রমজানের শেষ দশকে মেহনত-মুজাহাদা, (খ)রমজানের শেষ দশক যাপনে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ কি তা উল্লেখ করা, (গ)আল্লাহর সাথে বান্দার সম্পর্ক মজবুত করা ও তার নৈকট্য লাভে মেহনত-মুজাহাদা

খুতবায় যা থাকছে : (ক)মাহে রমজানের শেষ দশকে মেহনত-মুজাহাদা, (খ)রমজানের শেষ দশক যাপনে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ কি তা উল্লেখ করা, (গ)আল্লাহর সাথে বান্দার সম্পর্ক মজবুত করা ও তার নৈকট্য লাভে মেহনত-মুজাহাদা

তাকদীরের  উপর ঈমান বা  বিশ্বাস করা ব্যতিত এ পৃথিবীতে কোন বান্দা শান্তি পেতে পারেনা। আর সে ঈমান হলো  এ বিশ্বাস রাখা যে,আল্লাহ যা চান তা-ই হয়,আর তিনি যা চাননা তা হয়না। পৃথিবীর সমগ্র মানুষ যদি কারো কোন ক্ষতি করতে চায়,তাহলে তারা ততটুকু ক্ষতিই করতে পারবে যতটুকু তার ভাগ্যে লেখা আছে। আর যদি সবাই মিলে তার কোন  উপকার করতে চায় তাহলে ততটুকুই করতে পারবে যতটুকু তার ভাগ্যে  আছে। খুতবায় বিষয়টি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। আশা করি পাঠক মাত্রই এর দ্বারা উপকৃত হবে।

তাকদীরের উপর ঈমান বা বিশ্বাস করা ব্যতিত এ পৃথিবীতে কোন বান্দা শান্তি পেতে পারেনা। আর সে ঈমান হলো এ বিশ্বাস রাখা যে,আল্লাহ যা চান তা-ই হয়,আর তিনি যা চাননা তা হয়না। পৃথিবীর সমগ্র মানুষ যদি কারো কোন ক্ষতি করতে চায়,তাহলে তারা ততটুকু ক্ষতিই করতে পারবে যতটুকু তার ভাগ্যে লেখা আছে। আর যদি সবাই মিলে তার কোন উপকার করতে চায় তাহলে ততটুকুই করতে পারবে যতটুকু তার ভাগ্যে আছে। খুতবায় বিষয়টি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। আশা করি পাঠক মাত্রই এর দ্বারা উপকৃত হবে।

যেহেতু মানুষের বিবেকবুদ্ধি অপূর্নাঙ্গ, এবং  মানুষের বিবেক অদৃশ্য বিষয় বুঝতে অক্ষম, এজন্য মানুষের  নবী রাসুলের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, যাতে মানুষ অন্ধকার থেকে হেদায়েতের আলোর দিকে আসতে পারে।

যেহেতু মানুষের বিবেকবুদ্ধি অপূর্নাঙ্গ, এবং মানুষের বিবেক অদৃশ্য বিষয় বুঝতে অক্ষম, এজন্য মানুষের নবী রাসুলের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, যাতে মানুষ অন্ধকার থেকে হেদায়েতের আলোর দিকে আসতে পারে।

প্রমাণাদি